ঢাকা, বাংলাদেশ │ শনিবার, ২৮ মে ২০২২
প্রচ্ছদ » সারা বাংলা » সরকারি স্কুলের কক্ষ থেকে ত্রাণসামগী ও কম্বল উদ্ধার

সরকারি স্কুলের কক্ষ থেকে ত্রাণসামগী ও কম্বল উদ্ধার

ভোলার তজুমদ্দিনে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ত্রাণসামগ্রী ও কম্বল উদ্ধার করেছে উপজেলা প্রশাসন।

শনিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পল্লব কুমার হাজরা কক্ষ থেকে মালামালগুলো জব্দ করে প্রশাসনের হেফাজতে নেয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে ৪নং চাঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের বরাদ্দের ৩২ বস্তা ত্রাণসামগ্রী ও ৪ বস্তা কম্বল আত্মসাতের উদ্দেশ্যে ২নং ওয়ার্ডের মধ্য চাঁচড়া প্রাথমিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে রাখেন চাঁচড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রিয়াদ হোসেন হান্নান।

স্থানীয়রা বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে জানালে শুক্রবার রাত ২টায় তজুমদ্দিন থানার এসআই মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে কথা বলে মালামালগুলো চৌকিদারের হেফাজতে রাখেন।

পরদিন শনিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পল্লব কুমার হাজরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কক্ষ থেকে মালগুলো জব্দ করে প্রশাসনের হেফাজতে নেন।

চাঁচড়া ইউনিয়নের ১,২ ও ৩নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মেম্বার শামছুন্নাহার জানান, ত্রাণের মালগুলো শুক্রবার ইউনিয়ন পরিষদ বন্ধ থাকায় উপজেলা থেকে এনে স্কুলে রাখা হয়েছে।

মধ্য চাঁচড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মান্নান বলেন, তালা ভেঙে ত্রাণের মালামালগুলো স্কুলের কক্ষে রাখা হয়েছে।

তালা ভাঙার বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানানো হয়েছে কিনা- এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর দিতে পারেননি প্রধান শিক্ষক।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নুরুল ইসলাম বলেন, স্কুলের তালা ভাঙার বিষয়টি আমাকে কেউ জানায়নি, আপনার কাছেই শুনলাম।

চাঁচড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের বলেন, চেয়ারম্যান হান্নান সরকারি মালামাল ইউনিয়ন পরিষদে না রেখে আত্মসাতের জন্য স্কুলের রুমে রাখেন।

চাঁচড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও চাঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক রিয়াদ হোসেন হান্নান বলেন, তজুমদ্দিন থেকে আনা ত্রাণসামগ্রীগুলো বহনকৃত গাড়ির ড্রাইভার পরিষদ বন্ধ পেয়ে স্কুলের মাঠে রেখে যায়। স্থানীয় ইউসুফ সিকদার মালামালগুলো স্কুলের একটি রুমে রাখেন। আমার প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান আবু তাহের মিয়া ও তার বড়ভাই শামছু মাস্টার রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে আত্মসাতের অভিযোগ করছেন।

তজুমদ্দিন থানার অফিসার ইনচার্জ (ভারপ্রাপ্ত) এনায়েত হোসেন বলেন, চাঁচড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবু তাহের মিয়া স্কুলের রুমে মালামাল রাখার বিষয়টি জানালে ফোর্স পাঠিয়ে ত্রাণসামগ্রীগুলো চৌকিদারের হেফাজতে রাখা হয়। পরদিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ত্রাণসামগ্রীগুলো জব্দ করে উপজেলায় নিয়ে আসেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পল্লব কুমার হাজরা বলেন, শনিবার সকালে স্কুলের একটি রুম থেকে ত্রাণের মালামাল জব্দ করা হয়েছে। তদন্তের জন্য তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তের রিপোর্টের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মতামত দিন