মনিটাইজেশন ছাড়াই ইউটিউব শর্টস থেকে আয়

ইউটিউব শর্টস। ছবি: সংগৃহীত

দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে উঠা টিকটককে টেক্কা দিতে ২০২০ সালে ইউটিউব শর্টস নামে একই ধরণের সেবা নিয়ে আসে। অল্প সময়ের মধ্যে বেশ জনপ্রিয় একটি ইউটিউব ফিচারে পরিণত হয়েছে এটি। ইউটিউবের ভিডিও থেকে আয় করতে ইউটিউব মনিটাইজেশন প্রোগ্রামে যুক্ত হতে হয়। তবে ইউটিউব শর্টস ফান্ডের মাধ্যমে ক্রিয়েটররা শুরুতে মনিটাইজেশন না থাকলেও আয় করতে পারবেন।

ইউটিউব শর্টস আপলোড করার একাধিক উপায় রয়েছে। প্রথমত ভার্টিকাল এসপেক্ট রেশিওর ৬০ সেকেন্ডের যে কোনো ভিডিও আপলোড করলে, তা শর্টস হিসাবে বিবেচ্য হবে। আবার ইউটিউবের ভিডিওগুলোতে থাকা ‘ক্রিয়েট’ অপশন ব্যবহার করে ভিডিওর সাউন্ড দ্বারা শর্টস তৈরি করা যাবে। তবে শুধু বিনোদনের জন্য নয়, ইউটিউবের মতো শর্টসেও ভিডিও আপলোড করে টাকা ইনকাম করা যায়।

চলুন জেনে নেওয়া যাক ইউটিউব শর্টস থেকে আয়ের উপায়

ইউটিউবের ভিডিও থেকে আয় করতে ইউটিউব মনিটাইজেশন প্রোগ্রামে যুক্ত হতে হয়। তবে ইউটিউব শর্টস ফান্ডের মাধ্যমে ক্রিয়েটররা শুরুতে মনিটাইজেশন না থাকলেও আয় করতে পারবেন। ইউটিউব শর্টস ফান্ড হলো ১০০মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের একটি ফান্ড, যেখান থেকে ২০২১ ও ২০২২সালের মধ্যে যোগ্য ক্রিয়েটরদের অর্থ প্রদান করা হবে। প্রতি মাসে একজন শর্টস ক্রিয়েটর ১০০ থেকে ১০ হাজার মার্কিন ডলার পর্যন্ত বোনাস পেতে পারেন।

যেসব ক্রিয়েটর অরিজিনাল শর্টস ভিডিও তৈরি করবেন শুধু তারাই বোনাস পান। এমনকি ইউটিউব পার্টনারের অন্তর্ভুক্ত নয়, সেসব চ্যানেলও শর্টস বোনাস পাবে।

প্রতি মাসে পূর্ববর্তী মাসের পারফরম্যান্সের উপর ভিত্তি করে ক্রিয়েটরদের বোনাস প্রদান করবে ইউটিউব। সকল শর্টস ভিডিও-এর পারফরম্যান্স মেট্রিকস এ যোগ হবে। অর্থাৎ নতুন পুরনো সকল ভিডিও থেকে শর্টসের মাধ্যমে আয় সম্ভব।

শর্টস ফান্ডের বোনাস পেতে হলে মানতে যে শর্ত

শর্টস ফান্ডের বোনাস পেতে হলে চ্যানেলে ১৮০দিনের মধ্যে কমপক্ষে একটি শর্টস আপলোড করা থাকতে হবে। ইউটিউব কমিনিউটি গাইডলাইন, কপিরাইট রুলস ও মনিটাইজেশন পলিসি মেনে চলতে হবে। যেসব চ্যানেলের ভিডিওতে অন্য কোনো সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের লোগো বা ওয়াটারমার্ক থাকবে, সেসব চ্যানেলকে বাদ দেওয়া হবে। অন্য কোনো ক্রিয়েটরের কনটেন্ট, সিনেমা, টিভি শোর আনএডিটেড ক্লিপস আপলোড করলে চ্যানেলটি বোনাস পাবে না। ক্রিয়েটরের বয়স কমপক্ষে ১৩ বছর বা তার অধিক হতে হবে।

মতামত দিন