ঢাকা, বাংলাদেশ │ বুধবার, ১০ আগস্ট ২০২২
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » মালয়েশিয়া » বাংলাদেশি কর্মীরা আপাতত ফিরতে পারছে না মালয়েশিয়ায়

বাংলাদেশি কর্মীরা আপাতত ফিরতে পারছে না মালয়েশিয়ায়

মালয়েশিয়ায় লকডাউন বা মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার থাকায় বিদেশি কর্মীরা আপাতত দেশটিতে প্রবেশ করতে পারছে না। তবে অন্য তিন ধরণের ভিসাধারিরা ফিরতে পারবে। ঢাকায় মালয়েশিয়ান হাইকমিশন থেকে রাত নয়টার দিকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। যদিও এর আগে বিদেশিদের মালয়েশিয়ায় ফিরতে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

বৃহস্পতিবার ( ২৭ মে ) রাতে হাইকমিশনের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে জানানো হয়, “মালয়শিয়ান সরকার চলমান শর্তসাপেক্ষ মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার (CMCO) অনুসারে টেম্পোরারি এমপ্লয়মেন্ট পাস (PLKS) ভিসাধারিসহ সকল বিদেশি নাগরিকের উপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে। এই সময়ে ‘পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট’ (PRs), ‘লং-টার্ম সোশ্যাল ভিজিট পাস’ (মালয়শিয়ান নাগরিকের স্বামী/স্ত্রী – PLJP), মালয়েশিয়া সরকার কর্তৃক অনুমোদিত ‘সেকেণ্ড হোম’ (MM2H) এ অংশগ্রহণকারিরা ব্যতীত সকল বিদেশি নাগরিক মালয়শিয়ায় প্রবেশ করতে পারবে না।”

অর্থাৎ আপাতত বাংলাদেশি কর্মী যারা ছুটিতে দেশে এসেছিলেন তারা মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না। হাইকমিশন থেকে বলা হয়, পরবর্তী বিজ্ঞপ্তি না হওয়া পর্যন্ত সকল ভিসা সুবিধা সাময়িক স্থগিত করা হয়েছে।

যে তিন ধরণের ভিসাধারিরা মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করতে পারবেন, তাদের জন্য কিছু নিয়মকানুন আগের বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করে হাইকমিশন। ১ জুন ২০২০ থেকে কার্যকর হতে যাওয়া বিদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় ফিরে আসা মালয়েশিয়ানদের একটি নির্ধারিত কোয়ারেন্টিন সেন্টারে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের জন্য ১,০৫০ রিংগিত দিতে হবে। নন-মালয়েশিয়ানরা যারা নিজ নিজ দেশ থেকে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করবেন তাদের একটি নির্ধারিত কোয়ারেন্টিন সেন্টারে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের জন্য ২,১০০ রিংগিত প্রদান করতে হবে। এ ক্ষেত্রে কেউ কোয়ারান্টিন কেন্দ্রের অবস্থান পছন্দ করতে পারবে না।

আবেদন করতে যা লাগবে: চুক্তিপত্রের স্ক্যান কপি ( ফর্ম পুরন করার পরে), পাসপোর্ট কপি স্ক্যান করে, ভিসার স্ক্যান কপি, আই কার্ড এর স্ক্যান কপি (যদি থাকে)। সম্পূর্ণ চুক্তিপত্র এবং পাসপোর্টের স্ক্যান কপিগুলি ইমেইল করার পরে ৩ দিন কর্ম দিবস সময় পরে ঢাকায় অবস্থিত মালয়েশিয়ান হাইকমিশন থেকে অনুমতি পত্র সংগ্রহ করতে কবে। মালয়েশিয়ায় পৌঁছে কেএলআইএ তে জাতীয় দুর্যোগ পরিচালনা সংস্থার প্রতিনিধিদের কাছে চুক্তিপত্র এবং হাইকমিশনের অনুমতি পত্র উপস্থাপন করতে হবে। পরিবারে স্বামী এবং স্ত্রীর পৃথক ঘরে পৃথক পৃথক কক্ষে রাখা হবে।

১২ বছর বয়সের কম বয়সী বাচ্চারা একই ঘরে তার পিতামাতার সাথে থাকতে পারে। ১২ বছর বা তার বেশি বয়সী শিশুদের তার নিজের ঘরে পৃথক করা হবে। প্রতিটি সন্তানের জন্য পৃথকীকরণের দাম একই (আরএম ১,০৫০) প্রদান করতে হবে।
মালয়েশিয়ায় আসার সময় উভয়ের বাবা মা সাথে থাকলে ১২ বছরের কম বয়সী শিশুরা পছন্দমত বাবা বা মায়ের সাথে রাখতে পারে তা বেছে নিতে পারে।

মতামত দিন