ঢাকা, বাংলাদেশ │ শনিবার, ২৮ মে ২০২২
প্রচ্ছদ » জাতীয় » নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে উসকানিদাতা শনাক্ত

নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে উসকানিদাতা শনাক্ত

চলতি বছরের ২৯ জুলাই জাবালে নূর পরিবহনের বাসের চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী রাজীব ও দিয়া খানম নিহত হওয়ার পর ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলন নিয়ে একটি গোপন প্রতিবেদন তৈরি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এতে শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তি রয়েছেন।

গত ১২ নভেম্বর এই গোপন প্রতিবেদনের একটি কপি শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্র থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা গেছে।

প্রতিবেদনে বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামও রয়েছে এবং প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মন্ত্রনালয় থেকে ব্যবস্থা নিতেও বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, রাজধানীর শহীদ রমিজ উদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী বাস চাপায় নিহত হওয়ার পর ২৯ জুলাই থেকে ৮ আগস্ট পর্যন্ত ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলন হয়।

৪ আগস্ট বিভিন্ন স্থানে সরকার সমর্থক ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা হেলমেট পরে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালান। এর বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ করলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে অবরুদ্ধ অবস্থায়ই পুলিশের হামলার শিকার হন।

এরপরও ‘সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ’ এনে ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখাওয়াত হোসেন নিঝুম, শিহাব শাহরিয়ার, সাবের আহমেদ উল্লাস, আজিজুল করিম অন্তর, রেদোয়ান আহমেদ, রেজা রিফাত আহমেদ, সীমান্ত সরকার ও ইফতেখার হোসেন সহ শত শত শিক্ষার্থীকে আসামি করা হয়।

ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মো. তাইমুন হাসনাত, রাশেদুল ইসলাম, মো. হাসান, মুশফিকুর রহমান’কে প্রধান করে ৩৪৭ জন শিক্ষার্থী সহ অজ্ঞাতনামা অনেকের বিরুদ্ধে ধানমন্ডি থানায় দু’টি মামলা হয়।

অন্যদিকে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে মামলা হয় বুয়েটের শিক্ষার্থী দাইয়ান নাফিস প্রধানসহ ৪০ জন এবং অজ্ঞাতনামা অনেকের বিরুদ্ধে।

পরবর্তীতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ৯৯ জনকে গ্রেফতার করে।

শিক্ষার্থীর পাশাপাশি আন্তর্জাতিকভাবে সমাদৃত ও পরিচিত আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠান আইন প্রয়োগকারী সংস্থা।

এ আন্দোলন নিয়ে দেশব্যাপীই শুধু তোলপাড় হয়নি, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও ওই ৯-১০ দিনের ঘটনাপ্রবাহ বেশ গুরুত্ব দিয়ে প্রচারিত হয়েছিল।

মতামত দিন