ঢাকা, বাংলাদেশ │ শনিবার, ২৮ মে ২০২২
প্রচ্ছদ » সারা বাংলা » গ্রীন ভয়েস এর পক্ষ থেকে কক্সবাজার জেলায় বৃক্ষরোপণ

গ্রীন ভয়েস এর পক্ষ থেকে কক্সবাজার জেলায় বৃক্ষরোপণ

মোঃ আব্দুল্লাহ আল হাদী, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: “নিজ বাড়ির আঙিনায়, একটি হলেও গাছ লাগাই,পরিবেশ বাচাই” এই স্লোগানকে সামনে রেখে পরিবেশবাদী যুব সংগঠন গ্রীন ভয়েস কর্তৃক আয়োজিত সারাদেশে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করেছে।

গ্রীণ ভয়েস এর একদল যুবক তরুণ -তরুণী বাংলাদেশ কে সবুজায়নের প্রত্যয় নিয়ে সারা দেশব্যাপী এ কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছে।এরই ধারাবাহিকতায় কক্সবাজার জেলার গ্রীণ ভয়েস বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। আজ গ্রীন ভয়েস কক্সবাজার জেলা শাখার পক্ষ থেকে টেকনাফ উপজেলার নাছর পাড়া কবরস্থান, নূরানী মাদ্রাসা,নাছর পাড়া কবরস্থান এবং ঈদগাহ ময়দানে বৃক্ষ রোপণ করা হয়। বিভিন্ন প্রকার ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপণ করে এই কর্মসূচি উদ্বোধন করা হয়।

গ্রীন ভয়েস টেকনাফ উপজেলা শাখার সমন্নয়ক আব্দুর রহিম এর সভাপতিত্বে বৃক্ষরোপণ উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক, এবং শিক্ষানুরাগী জনাব, গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, এবং RDRS এর প্রজেক্ট অফিসার, আশীশ কুমার মজুমদার।

গ্রীন ভয়েস টেকনাফ উপজেলা শাখার সমন্নয়ক আব্দুর রহিম বলেন, আগামীকাল থেকে বিভিন্ন রাস্তার দুপাশে এবং নয়া বাজার জামে মসজিদের মাঠ প্রাঙ্গণ, মিনা বাজার টেকপাড়া জাব্বারিয়া জামে মসজিদের মাঠ প্রাঙ্গণ, হ্নীলা রাসুলাবাদের আজিজিয়া মদিনাতুল উলূম (বালক-বালিকা) দাখিল মাদ্রাসাও হেফাজও এতিমখানায়, এবং মৌলভীবাজারে কয়টা মসজিদে রোপণ করা হবে বলে জানান।

গ্রীন ভয়েস এর কেন্দ্রীয় প্রধান সমন্বয়ক জনাব আলমগীর কবির জানান, গ্রীন ভয়েস একটি পরিবেশবাদী যুব সংগঠন। পরিবেশ সচেতনতার পাশাপাশি আমরা মনে করি, যে পরিমাণ বৃক্ষ ধ্বংস হয়েছে এবং তাতে পরিবেশের যে ক্ষতি সাধন হয়েছে তা পূরণ করার জন্য বৃক্ষ রোপণ এর বিকল্প আর কিছুই হতে পার না।

সমাজের অন্যান্য সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এইভাবে বৃক্ষরোপণ কার্যক্রমে এগিয়ে আসে, তাহলে এই ক্ষতি কিছুটা হলেও পুরন করা সম্ভব হবে, এইসময় তিনি বলেন তারুন্যই শক্তি তারুন্যই বল আপনারা যেখানেই ফাঁকা জায়গা পাবেন সেখানেই গাছ লাগান কারণ গাছ আমাদের শত্রু নয় বরং বন্ধু হয়েই সব সময় পাশে থাকবে। যেকোন দূর্যোগ পরিস্থিতে বৃক্ষ আপনাকে রক্ষা করবে মানুষদের পাশে দাঁড়াবে। কিছুদিন আগের কথায় ভাবুন সুন্দরবন আম্ফানের হাত থেকে আমাদেরকে বাচিঁয়েছে। সমাজের কিছু বিত্তবান ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় আমরা এই কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছি।

মতামত দিন