ঢাকা, বাংলাদেশ │ শনিবার, ২৮ মে ২০২২
প্রচ্ছদ » অর্থ ও বাণিজ্য » কমছে চাল ডাল চিনি আটা আলু পেঁয়াজের দাম

কমছে চাল ডাল চিনি আটা আলু পেঁয়াজের দাম

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে যেমন চাল, ডাল, আটা, আলু, পেঁয়াজ, রসুন ইত্যাদির দাম যৌক্তিক পর্যায়ে রাখতে প্রস্তাবিত উৎস করহার কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট জাতীয় সংসদে উপস্থাপনের সময় এ প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবসায়ীদের হাতে চলতি পুঁজির ঘাটতি লাঘবে এবং উৎসে করহার যৌক্তিক করার লক্ষ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসহ কতিপয় পণ্যে উৎসে আয়কর কর্তনের হার কমানোর প্রস্তাব করছি। বর্তমানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য যেমন চাল, আটা, আলু, পেঁয়াজ, রসুন ইত্যাদি স্থানীয় পর্যায়ে সরবরাহের ক্ষেত্রে উৎসে আয়কর কর্তনের সর্বোচ্চ হার ৫ শতাংশ, যা ভিত্তি মূল্যে নির্বিশেষে ২ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করছি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে রসুন ও চিনি আমদানি পর্যায়ে ৫ শতাংশ অগ্রিম আয়কর সংগ্রহ করা হয়। এই হার ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করছি। এছাড়া বর্তমানে হাঁস, মুরগির খাদ্য উৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত কাঁচামাল আমদানি পর্যায়ে ৫ শতাংশ অগ্রিম আয়কর আরোপ করা হয়। পোল্ট্রি শিল্পের বিকাশের লক্ষ্যে এই অগ্রিম আয়কর আরোপ ৫ শতাংশের পরিবর্তে ২ শতাংশ প্রস্তাব করছি।

জাতীয় সংসদে ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে করখাতে আয় ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা। এরমধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) অধীন আয় ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। এনবিআর-বহির্ভূত করব্যবস্থা থেকে ১৫ হাজার কোটি টাকা পাওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। কর বহির্ভূত রাজস্ব ৩৩ হাজার কোটি টাকা ধরা হয়েছে। অভ্যন্তরীণ আয়ের বাইরে আগামী অর্থবছরে বৈদেশিক অনুদান থেকে ৪ হাজার ১০ কোটি টাকা অনুদান পাওয়ার আশা করছে সরকার।

মতামত দিন