ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২২

বাদ পড়া শিল্পীদের ভোটাধিকার দেয়াই হবে প্রথম কাজ: নিপুণ

শিল্পী সমিতির নির্বাচনে শতাধিক ভোটার ভোট দিতে পারেননি। সেই বাদ পড়া শিল্পীদের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেয়াই হবে নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক নিপুণের প্রথম কাজ।

নিপুণ জানান, দায়িত্ব নেয়ার পর ভোটাধিকার হারানোদের সংগঠনে যুক্ত করাই হবে প্রথম কাজ। এটি নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির মধ্যে ছিল অন্যতম।

নিপুণ বলেন, আমি আমার প্রতিটি নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে বদ্ধপরিকর। কাল (সোমবার) থেকে শিল্পী সমিতির অফিসে বসবো। কাল থেকেই সাংগঠনিক কাজ শুরু করবো।

নিপুণের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জায়েদ খান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সে গত চার বছরে তার মতো করে কাজের চেষ্টা করেছে। আমি আমার নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ি কাজ করবো। জায়েদ যদি মনে করে আমাকে কোনো কাজে তার প্রয়োজন তাকে সহযোগিতা করবো। সমিতির কাজে যদি জায়েদকে প্রয়োজন হয় অবশ্যই তাকে ডাকবো।

জায়েদ খানের সমর্থক প্রার্থীদের মধ্যে বিজয়ী হয়েও ডিপজল, রুবেল, মৌসুমী, অরুণা বিশ্বাস, রোজিনা, সুচরিতা, অঞ্জনারা শপথ গ্রহণ করতে আসেননি।

তাদের উদ্দেশে নিপুণ বলেন, আপনারা আমাদের সাথে আসুন। আপনারা যদি চান আমি আরো বড় আয়োজনে শপথ অনুষ্ঠান করিয়ে আপনাদের বরণ করে নেব। তারপরেও আপনারা বিভেদ ভুলে কমিটিতে আসুন। সবাইকে নিয়ে এক হয়ে কাজ করবো।

এদিকে, জায়েদের বিরুদ্ধে টাকা দিয়ে ভোট কেনা ও একাধিক অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে নির্বাচনী আপিল বোর্ড। সেই প্রেক্ষিতে তার প্রার্থীতা বাতিল করে নিপুণকে শনিবার সন্ধ্যায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়।

যদিও এ ঘটনার পর জায়েদ বলছেন, হাইকোর্টে আপিল করবেন। কোনোভাবেই তিনি নিপুণকে সাধারণ সম্পাদক মানছেন না।

নির্বাচনে আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান সোহানুর রহমান সোহান বলেন, জায়েদ হাইকোর্টে যেতেই পারে। তবে তার কাছে কোনো স্ট্রং এভিডেন্স নেই। আদালতে তার অভিযোগ ধোপে টিকবে না।

নিপুণ বলেন, জায়েদ যদি হাইকোর্টে যায় বা কোনো ব্যবস্থা নেয় আমি বসে থাকবো না। আমিও আমার মতো লড়ে যাবো। সে অন্যায় করেছে এটা প্রমাণিত হয়েছে। আমি সত্য ও ন্যায়ের সাথে ছিলাম বলে জয় পেয়েছি। তবে আমি ছেড়ে কথা বলবো না।

মতামত দিন